+
আ.লীগ-বিএনপি সংঘর্ষ
আ.লীগ-বিএনপি সংঘর্ষ

আ.লীগ-বিএনপি সংঘর্ষ

আওয়ামী লীগ ও বিএনপি-কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে নোয়াখালীর কবিরহাটে। এ ঘটনায় উভয় পক্ষ পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করেছে।

উভয় পক্ষ দাবি করছে তাদের অনেক কর্মী আহত হয়েছেন। তবে পুলিশের দাবি, শুধু ছাত্রলীগের দুইজন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে কবিরহাট জিরো পয়েন্ট এলাকায় উভয় পক্ষ পথসভার আয়োজন করলে সংঘর্ষের এ ঘটনা ঘটে।

কবিরহাট থারার ওসি মির্জা হাসান বলেন, জিরো পয়েন্টের উত্তরে বিএনপি ও পশ্চিমে যুবলীগ পথসভা আহ্বান করেছিল।

“উভয় পক্ষ একই সময় মিছিল নিয়ে বাজারে গেলে তাদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা-ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। খবর পাওয়ার সাথে সাথে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলেও কাউকে পাওয়া যায়নি। পরে খবর নিয়ে জানা যায়, শরীফ ও শাহীন নামে ছাত্রলীগের দুই কর্মীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।”

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

পুলিশ দুইজন আহত হওয়ার খবর পেলেও উভয় পক্ষ দাবি করছে তাদের অনেক কর্মী আহত হয়েছেন।

নোয়াখালী-৫ (কবিরহাট-কোম্পানীগঞ্জ) আসনের বিএনপি প্রার্থী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ অভিযোগ করেন, “দলীয় নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে সভাস্থলে আসার সময় যুবলীগ-ছাত্রলীগ কর্মীরা অতর্কিতে হামলা চালায়।

“এতে আমার অর্ধশত নেতাকর্মী আহত হন। আহতদের স্থানীয় বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়।”

তবে কবিরহাট উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নূরুল আমিন রুমি পাল্টা অভিযোগ করেছেন।

তিনি বলেন, “বিএনপির লোকজন পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি মো. ইসমাইলের দোকানে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে। তাকে তারা পিটিয়ে আহত করে। খবর পেয়ে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ কর্মীরা ঘটনাস্থলে আসামাত্র তাদের ওপরও হামলা চালায় বিএনপি কর্মীরা।

“আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের অন্তত ১০ নেতাকমী আহত হন। তাদের মধ্যে মো. ইসমাইল, আবদুল জলিল, শরীফ ও শাহীনসহ পাঁচজনকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল ও কবিরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।”



Published: 2018-12-11 18:19:05